শোনো, সেই হাতটার
গল্পটা আজও বলা হয়নি ।

হ্যাঁ, সেই হাত, যার পেশিতে
আনকোরা শিল্পী রচেছে কেবল শিকড়,পাঁচ আঙ্গুলে
বিদ্রোহী বিক্ষুব্ধ আবেগ । আগ্রাসী লতা গুল্ফ
নির্ভুল লক্ষ্যে জড়িয়ে ধরেছে তার চৌহদ্দি ।

আমি যে তোমায় প্রতিবেশী মনে করি
আমি কি তোমায় বাড়তে দিতে পারি?
বল’ তুমি-ই বল’ ।

জানি আমি জানি,
এভাবেই  কেটে গেল কত সূর্য কত বৈশাখ
বিশ থেকে চব্বিশ, চব্বিশ ফেলে আটাশ ।

তবুও নাছোড়বান্দা সে হাত
আলোছায়ার ক্যানভাসে টিক টিক শব্দের ভরসায়
আবার মুষ্টিবদ্ধ হচ্ছে তার নীলাভ উড়ানে।

 

 

Discussion open [See More]


 

Tagged with →  
Share →

10 Responses to ক্যানভাস (শুভেন্দু ধাড়া)

  1. admin says:

    Hello, bhisan bhalo hoyechhe… Ei kobita tir discussion board open achhe.. angso nite log in karun http://www.blog.amarbanglakobita.com/viewtopic.php?f=5&t=3

  2. Amitava Bag says:

    “যার পেশিতে
    আনকোরা শিল্পী রচেছে কেবল শিকড়”

    গভীর অর্থবহ ….. amazing….

  3. Gobor Ganesh says:

    “আমি যে তোমায় প্রতিবেশী মনে করি”

    Ekhane ami ke? Ar tumi tai ba ke?

  4. Sudhir Ranjan Das says:

    আমার ধারনা হাত বলতে এখানে ৬ টি রিপুর কোনো একটি বিশেষ রিপুকে বোঝানো হয়েছে। অথবা ৬ টিকেই বোঝানো হয়েছে। আমি বলতে কবিতাটির কবি (উত্তম পুরুষ) কে বোঝানো হয়েছে। আর তুমি বলতে সেই হাতটিকেই বোঝানো হয়েছে। প্রতিবেশী বলেতে শুভাকাঙ্খী বোঝানো হয়েছে। তবু শুভেন্দুর জন্য অপেক্ষা করা ছাড়া উপায় নেই।

  5. Amitava Bag says:

    I have to write for Subhendu some lines after review…
    http://www.blog.amarbanglakobita.com/viewtopic.php?f=5&t=3

    But Subhendu it would be better to little bit discuss on SUDHIR Da’s comment. Is SUDHIR da is right or wrong? Everyone has the rights to explain a poetry by won assumption and point of view, but still there is a expectation from poet….

    • Subhendu Dhara says:

      অনেক দিন পর এলাম, সে জন্য দূঃখিত । আমি আগেও এই রিপ্লাই গুলো দেখেছিলাম, কিন্তু কিছু বলিনি। কেননা – কবিতার ব্যাখ্যা করা একটা কঠিন কাজ । তবুও করতে হয় । লাইন বাই লাইন তো পারব না। তবে প্রেক্ষাপট টা বলে দিলে বুঝতে অসুবিধা হবে না, আসলে এটা একটা ছবি ছিল আমার বন্ধুর আঁকা , যেখানে ও একটা হাত এঁকেছিল , যে হাতটি মুষ্টি বদ্ধ হয়ে উঠতে চাইছে (বড় হতে চাইছে ) কিন্তু সমাজ , প্রতিবেশি , ও আরও অনেকে যারা লতা গুল্ম , আগাছার মত সেই হাতটিকে পিছু টেনে ধরছে , এবং ব্যাবহারিক জিবনে এটাই সত্য। প্রতিবেশি দেশ, প্রতিবেশি মানুষ, কেউই প্রতিবেশির বৃদ্ধি সহ্য করে না, তারা নানা ভাবে তা প্রতিরোধ করে, এবং সেই ক্রিয়া কলাপ হাতটির কাছে ‘ভগবানের ক্রিয়াকলাপ’ যে মূলত সুপার আর্টিস্ট , তার আনকোরা (মানে – মন দিয়ে না করা কোনো কাজ ) কাজের ফল হিসেবেই দ্যাখে । আমার বন্ধুর ছবিটিতে আর একটা ঘড়ি ছিল। আসলে সময় যে বদলায়, সেটাই ইন্ডিকেট করেছিল ঘড়িটিতে। সময়ে একদিন হাত টা উঠবেই। এটাই বলতে চেয়েছিল। আমি সেই ছবিটা দেখেই এই লেখাটি লিখেছিলাম ।

      • Subhendu Dhara says:

        হাত টি এখানে আমি, কিংবা তুমি

        আমরা তোমায় প্রতিবেশি মনে করি , এখানে আমরা মানে ‘প্রতিবেশি’ যে হাত টিকে, মানে আমাকে কিংবা তোমাকে বলছে – প্রতিবেশি কি প্রতিবেশি কে বাড়তে দিতে পারে?

        আর কোথাও কোন জটিলতা নেই । আমার মনে হয় এবার বুঝতে অসুবিধা হবে না। নমস্কার নেবেন, ভালো থাকবেন ।

        • admin says:

          দারুন…………..
          কিন্তু ইদানিং লেখা পাচ্ছি না কেন?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *