অবশেষে আহ্লাদী পাতা সবটুকু বিবর্ণ নিয়ে উপমা হীন ,তরল রেটিনার
গর্ভস্থ গ্লেসিয়ার যদি আবেগী হত, কিছু ঘনত্ব হারাত নির্মম ।

‘পাথর তুমি আতর দিলে না, সে এতই অযথার্থ! তার
নাভিমূল ছিঁড়ে নির্ভুল শিহরন, নৈশব্দ দিলদার ’।

অক্ষাংশ বেয়ে এক মুখশ্রীর আবর্তন নিমগ্ন হলে জলজ নোটবুকে
বিজয়িনীর চন্দন সুবাস পৃষ্ঠা-পার, মূর্ছনা ভেঙ্গে ভেঙ্গে প্রেম প্রতীকী ময় ।

‘কম্পিত ধমনি আরও বেশি দাহ্য হিমে, অতল
এমনি উন্মাদনায় হাজার বছর টলমল’ ।

ঠিক গ্রীষ্মের চাতকের মত, মেঘের মন না বুঝেই অঙ্কুরিত স্বপ্ন এ-ডাল ও-ডাল শেষে
পুনশ্চ: আগামী এঁকেছে নকল নকসা ,অন্ধত্বের ভয়ানক প্রাজ্ঞতায় ।

 


 

Tagged with →  
Share →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *